জাতীয়

বিপুল অবৈধ সম্পদ অর্জন, ফেঁসে যাচ্ছেন ওসি প্রদীপ

ইনভেস্টিগেশন রিপোর্ট :
18 August, 2020
প্রকাশের সময় : দুপুর,12:35 pm
প্রকাশের সময় : দুপুর,12:36 pm

বিপুল অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকির বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। চলতি সপ্তাহের যে কোনো দিন মামলা রুজু হতে পারে বলে দুদক সূত্রে জানা গেছে।

৩ কোটি ৯৫ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অপরাধে মামলা দায়েরের অনুমতি চেয়ে গত ১২ আগস্ট দুদক কমিশনে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। কমিশনের অনুমতি পেলে মামলা রুজু হবে। দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর ২৬(২)/২৭(১) মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২-এর ৪ (২), ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারাসহ দ-বিধির ১০৯ ধারায় মামলা করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম ২-এর সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন মামলা রুজুর অনুমতি চেয়েছেন।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালে স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের হিসাব চেয়ে ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রীর কাছে নোটিশ পাঠায় দুদক। একই বছরের মে মাসে ওসি প্রদীপ দুদকে তার বৈধ সম্পদের হিসাব জমা দেন। সেখানে স্ত্রী চুমকির ৪ কোটি ২২ লাখ ৪৮ হাজার টাকার সম্পদ দেখানো হয়েছে। পারিবারিক ব্যয় ২১ লাখ ৭০ হাজার টাকাসহ মোট সম্পদ ৪ কোটি ৪৪ লাখ ১৮ হাজার টাকা। এক্ষেত্রে তার পূর্বের সঞ্চয়, উপহার, বাড়িভাড়া থেকে বৈধ আয় পাওয়া গেছে ৪৯ লাখ ১৩ হাজার টাকা। বাকি ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৫ হাজার টাকা অবৈধভাবে অর্জন করেছেন বলে তদন্তে উঠে আসে।

সূত্র জানায়, শ্বশুরের দানপত্রে নগরীর কোতোয়ালি থানার পাথরঘাটা এলাকায় একটি ছয়তলা বাড়ির মালিক হয়েছেন ওসি প্রদীপের স্ত্রী চুমকি কারণ; কিন্তু অপর দুই ছেলে ও এক মেয়েকে কোনো বাড়ি দানপত্র করা হয়নি। ফলে সাবেক ওসি প্রদীপ ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত আয় গোপন করতে সম্পদ স্থানান্তর ও হস্তান্তরের মাধ্যমে ভোগদখল করছেন। কমিশন ব্যবসার পক্ষেও যথাযত কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি চুমকি। মৎস্য ব্যবসা থেকে দেড় কোটি টাকা আয় দেখানো হয়েছে। ২০০২ সালে বোয়ালখালী উপজেলায় পাঁচটি পুকুর সাড়ে ১৬ লাখ টাকায় ১০ বছরের জন্য লিজ দেখানো হয়; কিন্তু তখন চুমকি বা ওসি প্রদীপের এ পরিমাণ টাকা সঞ্চয় থাকার কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি তারা।

দুদক বলছে, তখন মৎস্য ব্যবসা থেকে আয় থাকলে আয়কর রিটার্ন দেখানো হতো; কিন্তু তারা ২০১৩-১৪ করবছরে প্রথম দাখিল করা রিটার্নে মৎস্য ব্যবসার ঘোষণা এবং আয় দেখানো হয়নি। এ ছাড়া তার ব্যাংক হিসাব বিবরণীতে মৎস্য ব্যবসা সম্পর্কিত কোনো লেনদেন নেই। স্বামীর অবৈধ উপার্জন হালাল করতে ভুয়া মৎস্য ব্যবসা দেখিয়েছেন।

দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম ২-এর এক কর্মকর্তা জানান, দুদক কমিশনের অনুমতি পেলেই মামলা রুজু করা হবে। কমিশনের অনুমতির অপেক্ষায় রয়েছেন তারা।

এদিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেন, টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার, বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ এসআই লিয়াকত আলী, খলনায়ক ইলিয়াস কোবরাসহ ৮ জনের ব্যাংক হিসাব ৩০ দিনের জন্য স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইউ)। সোমবার (১৭ আগস্ট) বিএফআইইউ থেকে দেশে কার্যরত সব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে একটি চিঠি পাঠিয়ে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে চিঠি ইস্যু করার দিন থেকে তিনদিনের মধ্যে স্থগিত করা হিসাবগুলোর নাম, নম্বর, স্থিতি এ সংক্রান্ত তথ্যাদি (হিসাব খোলার ফরম, কেওয়াইসি প্রোফাইল ফরম, হালনাগাদ লেনদেনের বিবরণী) পাঠাতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে যে ৮ জনের ব্যাংক হিসাব স্থগিত ও তথ্য চাওয়া হয়েছে, তারা হলেন- এবিএম মাসুদ হোসেন, প্রদীপ কুমার দাশ, চুমকী কারান, প্রতীম কুমার দাশ, প্রতুশ কুমার দাশ, মো. লিয়াকত আলী, দিলীপ ও ইলিয়াস কোবরার।

হিসাবগুলোকে লেনদেন মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ক্ষমতাবলে ৩০ দিনের জন্য স্থগিত রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া চিঠিতে প্রত্যেকের নামের পাশে জন্ম তারিখ ও জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়াও এদিন সকালে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাস ও বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই লিয়াকত আলীসহ ৩ পুলিশকে কক্সবাজার জেলা কারাগারের গেটে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি। জিজ্ঞাসাবাদ করা অপর আসামি হলেন এএসআই নন্দদুলাল। কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক মোকাম্মেল হোসেন সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, কমিটির আহ্বায়ক ও চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে বেলা ১১টার দিকে তদন্ত দল কারাগারের ফটকে অবস্থান করেন। দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত তারা ওসি প্রদীপ, এসআই লিয়াকত ও এএসআই নন্দদুলালকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এদিন পৃথক পৃথকভাবে তাদের বক্তব্য গ্রহণ করেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা। এর আগে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কক্সবাজার, জেলা কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক ও মামলার তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাবকে চিঠি দেওয়া হয়।

এর আগে রোববার (১৬ আগস্ট) টেকনাফের মেরিন ড্রাইভের পাশে বাহারছড়া শামলপুর ২৩ নাম্বার রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সিআইসির কার্যালয়ে গণশুনানি করে তদন্ত দল। সেখানে সকাল থেকে শতশত মানুষ এসে জড়ো হন। তাদের মধ্যে ১১ জন গণশুনানিতে সাক্ষী হিসেবে নতিভুক্ত হন। ৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে তদন্ত দল। তদন্তের কাজ গুছিয়ে আনার কথা জানিয়ে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজানুর রহমান রবিবার সাংবাদিকদের বলেন, সরকার আমাদের ২৩ তারিখ পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করে দিয়েছে। আমরা আশা করছি, এর মধ্যে রিপোর্ট প্রস্তুত করতে পারব এবং সরকারকে জমা দিতে পারবো।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই ঈদুল আজহার আগের রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় দুটি মামলা করে। আর রামু থানায় একটি মামলা করে।

পরে ৫ আগস্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা করেন সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। এতে ৯ জনকে আসামি করা হয়।

আসামিরা হলেন- টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ, টেকনাফের বাহারছড়া শামলাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের প্রত্যাহার হওয়া পরিদর্শক লিয়াকত আলী, উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দদুলাল রক্ষিত, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, পুলিশ কনস্টেবল সাফানুর রহমান, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন, মো. মোস্তফা ও এসআই টুটুল। এদের মধ্যে আসামি মোস্তফা ও টুটুল পলাতক।

এর মধ্যে রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া পুলিশের চার সদস্য এবং এ ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলার তিন সাক্ষীকে গত শুক্রবার থেকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে র‌্যাব।

যাদের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে তারা হলেন- সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর রহমান, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন, পুলিশের দায়ের করা মামলার সাক্ষী মো. নুরুল আমিন, মো. নেজামুদ্দিন ও মোহাম্মদ আয়াছ।

“সুত্র পিএনএস/এএ”

“ইনভেস্টিগেশন নিউজ বিডি”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button