রাজনীতি

অবৈধ ক্ষমতা দখলকারীদের মুখে নীতি কথা মানায় না : সেতুমন্ত্রী

ইনভেস্টিগেশন রিপোর্ট :
বুধবার ,২৬ আগস্ট ২০২০
১১ ভাদ্র ১৪২৭,০৬ মুহাররম
১৪৪২ হিজরী,১১:১৭ পিএম
অনলাইন সংস্করণ

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর মোশতাক-জিয়া চক্র অবৈধ ক্ষমতা অপব্যবহারের মাধ্যমে জাতির বিবেককে কারারুদ্ধ করে রেখেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার ( ২৬ আগস্ট) বিকেলে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আলোচনা সভায় যুক্ত হন।

সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি মহাসচিব সরকারের পররাষ্ট্র নীতির সমালোচনা প্রসঙ্গে বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করার পরে যতবার ক্ষমতায় এসেছে তাদের সময় পরাষ্ট্রনীতি বলতে আদৌ কিছু ছিল কি?

তিনি বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির ভীত গড়ে দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তা বুঝতে পারে নাই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে পক্ষ হলো মিয়ানমার ও রোহিঙ্গা গোষ্ঠী। বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের স্থায়ী সমাধান খোঁজার জন্য দ্বিপাক্ষিক ও ত্রিপাক্ষিক বহুপাক্ষিক আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরাম রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান করার জন্য বাংলাদেশের পক্ষে দাবি তুলেছে এবং চলমান আছে। বিভিন্ন দেশের চাপ ও আন্তর্জাতিক আদালতের আদেশ থাকা সত্ত্বেও মিয়ানমার তাদের জায়গায় অনড় আছে। রোহিঙ্গা সমস্যা ও অস্থায়ীভাবে সমাধান করলে পরবর্তীতে এর প্রভাব বাংলাদেশে পড়বে। বাংলাদেশ সরকারের নেতৃত্বে বহুপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যা সমাধানের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, জীবিকার চাকা সচল রাখতে যখন গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হলো, তখন বিএনপি বলেছিলো দেশকে ভয়ঙ্কর বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা করোনা সংক্রমণ অতিমাত্রায় ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলো। শেখ হাসিনার সময় উপযোগী সিদ্ধান্তের ফলে আজ এতদিন পরেও বিশেষজ্ঞদের অবাক করে দিয়ে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েনি। বিএনপির কথামতো ভয়াবহ বিপর্যয় হয়নি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ’৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকচক্র, মানবতাবিরোধী স্বাধীনতার পরাজিত শক্তির বুলেটে সপরিবারে নিহত হন বঙ্গবন্ধু। সেদিনের হত্যাকাণ্ড নিছক কোনো ষড়যন্ত্র ছিলো না, সেদিন হত্যাকাণ্ড ছিল স্বাধীনতা বিরোধীদের গভীর পরিকল্পনা অংশ।

তিনি আরো বলেন, জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডের মধ্যে দিয়েই বাঙালি জাতির ভবিষ্যতকে নিকষ কালো মেঘ আবরণের আচ্ছদিত করার অপপ্রচেষ্টা। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর মোশতাক-জিয়া চক্র অবৈধ ক্ষমতা অপব্যবহারের মাধ্যমে জাতির বিবেককে কারারুদ্ধ করে রেখেছিলো।

শ্রমিক লীগের সভাপতি ফজলুল হক মন্টুর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাসিম, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আজম খসরুসহ শ্রমিক লীগের নেতাকর্মীরা।

“ইনভেস্টিগেশন নিউজ বিডি”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button